ঢাকা, মঙ্গলবার ০২ জুন ২০২০ | ১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

Live

৭ মাদরাসার শতভাগ ফেল এমপিও স্থগিত হচ্ছে

২২:৪১, ২৮ অক্টোবর ২০১৯ সোমবার

দাখিল পরীক্ষায় শতভাগ পরীক্ষার্থী ফেল করায় সাত মাদরাসার এমপিও (মান্থলি পেমেন্ট অর্ডার) স্থগিত করা হচ্ছে। এছাড়া আরও ৫২টি নন-এমপিও মাদরাসার পাঠদান অনুমোদন ও স্বীকৃতি স্থগিতেরও সুপারিশ করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদরাসা বিভাগ।

মাদরাসা ও কারিগরি বিভাগের সহকারী সচিব (মাদরাসা-২) আসগর আলী স্বাক্ষরিত এক নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ২০১৯ সালের দাখিল পরীক্ষায় ৫৯টি মাদরাসা থেকে কোনো শিক্ষার্থী উর্ত্তীণ না হওয়ায় মাদরাসাগুলোর এমপিও স্থগিতের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো।

 

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন ও উন্নয়ন) এ কে এম জাকির হোসেন ভূঁইয়া বলেন, ‘এমপিওভুক্ত সাত মাদরাসার এমপিও স্থগিতের নির্দেশ দিয়েছি। আর নন-এমপিও মাদরাসাগুলোর স্বীকৃতি ও পাঠদান স্থগিতের বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে। শূন্যপাস প্রতিষ্ঠানগুলোকে ইতোমধ্যে শোকজ করা হয়েছে।’

কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ২০১৯ সালের দাখিল পরীক্ষায় ৫৯টি মাদরাসা থেকে কেউ পাস করেনি। পরে গত ১৭ অক্টোবর এসব মাদরাসার এমপিও বন্ধের নির্দেশ দেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এই নির্দেশের পর মাদরাসা শিক্ষা অধিদফতর এমপিওভুক্ত সাতটি মাদরাসার এমপিও স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নেয়। এ বিষয়ে অধিদফতর যেকোনো সময় আদেশ জারি করবে বলে জানা গেছে।

শূন্যপাস এমপিওভুক্ত মাদরাসাগুলো হচ্ছে- দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার মোর্তা মণ্ডল দাখিল মাদরাসা, ঠাকুরগাঁও জেলার হরিপুর উপজেলার গেদুরা ইউনিয়ন কেন্দ্রীয় দাখিল মাদরাসা ও একই জেলার রাণীশংকৈল উপজেলার চন্দনহাট আলহাজ্ব ইমার উদ্দিন দাখিল মাদরাসা, ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার পালগাঁও ডিএস দাখিল মাদরাসা, সিরাজগঞ্জের উল্লাহপাড়া উপজেলার দক্ষিণ পুষ্টিগাছা বনানী দাখিল মাদরাসা, নিলফামারীর সদর উপজেলার বেড়াকুঠিয়া বরুয়া দাখিল মাদরাসা এবং নওগাঁ জেলার নিয়ামতপুর উপজেলার টিএইচবি সলামিয়া দাখিল মাদরাসা।

এদিকে, মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড থেকে নন-এমপিও ৫২টি মাদরাসার প্রধানকে কারণ দর্শানো নোটিশ দেয়া হয়েছে। কোনো পাঠদান অনুমোদন ও একাডেমিক স্বীকৃতি স্থগিত করা হবে না নোটিশে তা জানতে চাওয়া হয়েছে। অনেক প্রতিষ্ঠান নোটিশের জবাব দিলেও, বেশকিছু প্রতিষ্ঠান তার জবাব দেয়নি। জবাব না দিলেও সবগুলো প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানা গেছে।

কৃষি কাগজ/এস এম