ঢাকা, বুধবার ১২ আগস্ট ২০২০ | ২৭ শ্রাবণ ১৪২৭

Live

মেঘনায় মাছ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা শেষ হচ্ছে আজ

১৬:৫৫, ৩০ এপ্রিল ২০২০ বৃহস্পতিবার

ইলিশের জাটকা সংরক্ষণের জন্য লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলার মেঘনা নদীর ইলিশ অভয়াশ্রম এলাকায় জাটকাসহ সবধরনের মাছ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা শেষ হচ্ছে আজ বৃহস্পতিবার রাত ১২টায়। জাটকা নিধন প্রতিরোধ কার্যক্রমের আওতায় মেঘনা নদীর ইলিশ অভয়াশ্রম এলাকায় মার্চ ও এপ্রিল দুই মাস ইলিশসহ সবধরণের মাছ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা ছিল।

একই সময় জাটকা-ইলিশ মাছ ক্রয়-বিক্রয়, মওজুদ ও পরিবহন নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। মৎস্য সম্পদ সংরক্ষণ ও উন্নয়ন বিষয়ক জেলা ও উপজেলা ট্রাস্কফোর্স সরকারি ওই নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করেছিল। এদিকে নিষেধাজ্ঞাে উঠে যাওয়ার পর আগামীকাল শুক্রবার থেকে মেঘনা নদীতে পুরোদমে মাছ ধরার জন্য ইতিমধ্যে মাছ ঘাটগুলো সরগরম হয়ে উঠেছে।

সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ও উপজেলা ট্রাস্কফোর্সের সদস্য সচিব মো. জসিম উদ্দিন জানান, জাটকা নিধন প্রতিরোধের জন্য মার্চ ও এপ্রিল দু‘মাস চাঁদপুরের ষাটনল থেকে রামগতি উপজেলার আলেকজান্ডার পর্যন্ত মেঘনা নদীর ১০০ কিলোমিটার এলাকায় ইলিশ অভয়াশ্রমে সবধরণের মাছ ধরা, ক্রয় বিক্রয় ও পরিবহন নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। নিষেধাজ্ঞা চলাকালীন ঘাট এলাকা এবং মেঘনা নদীতে অভিযান চালিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। এ সময় ভ্রাম্যমাণ আদালতের ২৮টি মামলায় দুই জেলেকে কারাদণ্ড এবং আটক জেলেদের ৯২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এছাড়া অভিযানে আটক ৫০ লক্ষ ৬১ হাজার টাকা মূল্যের বেহুন্দী, মশারি, পাইজালসহ ৪৯টি এবং ৯৬ হাজার ৫’শ মিটার কারেন্ট জাল ধ্বংস করা হয়।

উপজেলা মৎস্য অফিস সূত্রে জানা গেছে, জাটকা নিধন প্রতিরোধ কার্যক্রম চলার সময় ক্ষতিগ্রস্ত জেলেদের পুনর্বাসনের জন্য ভিজিএফ কর্মসূচির আওতায় চার মাসের জন্য (মার্চ থেকে জুন পর্যন্ত) ১১ হাজার ৪৭৭ জেলে পরিবারকে প্রতি মাসে ৪০ কেজি করে চাল দেয়া হচ্ছে।

রামগতি উপজেলার আসল পাড়া, সেন্টার খাল, গাবতলী, রামগতির হাট ও টাংকি বাজার মাছঘাট এলাকায় গিয়ে দেখা যায় জেলেরা জাল ও ট্রলার নিয়ে মাছ ধরার জন্য প্রস্তুত রয়েছেন।

রামগতি মাছঘাটের জেলে আজাদ মাঝি, আসল পাড়া মাছঘাটের জেলে ইয়াছিন মাঝি বলেন, ‘নিষেধাজ্ঞা থাকার কারণে গত দু‘মাস নদীতে মাছ ধরা যায়নি। নিষেধাজ্ঞা উঠে গেলে নদী উন্মুক্ত এবং জেলেরাও প্রস্তুত।’

আলেকজান্ডার সেন্টার খাল ঘাটের মাছ ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. আফসার উদ্দিন বলেন,‘ দু’মাসের নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ায় থেকে নদী উন্মুক্ত হচ্ছে। জাল ও ট্রলার নিয়ে জেলেরা ইতিমধ্যেই ঘাটে আসতে শুরু করেছে।’