ঢাকা, বুধবার ২১ অক্টোবর ২০২০ | ৬ কার্তিক ১৪২৭

Live

মিশ্র প্রবণতায় এশিয়ার চালের বাজার

১৭:২৫, ১৪ মে ২০২০ বৃহস্পতিবার

এশিয়ার দেশগুলোয় চালের বাজারে মিশ্র প্রবণতা বজায় রয়েছে। শীর্ষ রফতানিকারক দেশ ভারতে গত সপ্তাহে খাদ্যপণ্যটির রফতানিমূল্য নয় মাসের সর্বোচ্চের কাছাকাছি অপরিবর্তিত রয়েছে। চালের রফতানিমূল্য চাঙ্গা রয়েছে ভিয়েতনামেও। তবে ব্যতিক্রম দেখা গেছে থাইল্যান্ডে। সর্বশেষ সপ্তাহে দেশটিতে চালের রফতানিমূল্য আগের তুলনায় কমেছে। খবর বিজনেস রেকর্ডার ও এগ্রিমানি।

ভারত বিশ্বের শীর্ষ চাল রফতানিকারক দেশ। সর্বশেষ সপ্তাহে দেশটির বাজারে রফতানিযোগ্য ৫ শতাংশ ভাঙা চালের দাম দাঁড়িয়েছে টনপ্রতি ৩৭৮-৩৮৩ ডলার। এর আগের সপ্তাহেও দেশটির বাজারে চালের রফতানিমূল্য একই ছিল। এটা ভারতে নয় মাসের মধ্যে খাদ্যপণ্যটির সর্বোচ্চ দামের প্রায় কাছাকাছি।

ভারতীয় ট্রেডাররা বলছেন, নভেল করোনাভাইরাসের বৈশ্বিক মহামারী ভারতে চালের রফতানিমূল্য বাড়িয়ে দিয়েছে। প্রাণঘাতী এ ভাইরাসের সংক্রমণে অনেক রফতানিকারক দেশ নিজেদের জনগণের খাদ্য নিরাপত্তার বিষয়টি অগ্রাধিকার দিচ্ছে। ফলে অনেক দেশ চাল রফতানিতে সাময়িক লাগাম টেনেছে। এর জের ধরে এশিয়া ও আফ্রিকার আমদানিকারক দেশগুলোয় ভারতীয় চালের রফতানি চাহিদা বাড়তে শুরু করেছে। বাড়তি চাহিদা ভারতের বাজারে খাদ্যপণ্যটির দাম বাড়িয়ে দিয়েছে।

তবে চাহিদা বাড়লেও সেই অনুযায়ী চাল সরবরাহ করতে পারছেন না ভারতের রফতানিকারকরা। এর পেছনে ভারতজুড়ে চলমান লকডাউনকে দায়ী করছেন তারা। তাদের মতে, লকডাউনে শ্রমিক ও পরিবহন সংকট থাকায় চালের সরবরাহ প্রত্যাশা অনুযায়ী বাড়ানো যায়নি। বাড়তি চাহিদার বিপরীতে সরবরাহে বিঘ্ন ঘটায় দেশটিতে রফতানিযোগ্য চালের দাম নয় মাসের সর্বোচ্চের কাছাকাছি উঠে গেছে।

চাল রফতানিকারক দেশগুলোর বৈশ্বিক শীর্ষ তালিকায় থাইল্যান্ডের অবস্থান দ্বিতীয়। সর্বশেষ সপ্তাহে দেশটির বাজারে রফতানিযোগ্য প্রতি টন ৫ শতাংশ ভাঙা চাল ৫১৫-৫৪৬ ডলারের মধ্যে বিক্রি হয়েছে। আগের সপ্তাহে খাদ্যপণ্যটি টনপ্রতি ৫৩৫-৫৫৭ ডলারে বিক্রি হয়েছিল। সেই হিসেবে এক সপ্তাহের ব্যবধানে দেশটিতে চালের রফতানিমূল্য টনপ্রতি সর্বোচ্চ ২০ ডলার কমেছে।

ব্যাংককভিত্তিক ট্রেডাররা জানান, তীব্র খরা পরিস্থিতি থাইল্যান্ডে চালের দাম বাড়িয়ে দিয়েছিল। তবে কিছু এলাকায় বৃষ্টি হওয়ার পর মিলাররা আগেই মজুদ করা চাল বিক্রি করতে শুরু করেছেন। এতে দেশটির বাজারে সরবরাহ কিছুটা বেড়ে খাদ্যপণ্যটির দাম কমতে শুরু করেছে।

তবে বিশ্বের তৃতীয় শীর্ষ চাল রফতানিকারক দেশ ভিয়েতনামে খাদ্যপণ্যটির দাম আগের তুলনায় বেড়েছে। সর্বশেষ সপ্তাহে দেশটির বাজারে রফতানিযোগ্য ৫ শতাংশ ভাঙা চাল বিক্রি হয়েছে টনপ্রতি ৪৫০ ডলারে। দুই বছরের মধ্যে ভিয়েতনামে এটাই চালের সর্বোচ্চ রফতানিমূল্য।

দেশটির ট্রেডাররা জানান, মহামারী পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হয়ে আসায় চাল রফতানিতে বিদ্যমান সাময়িক নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হয়েছে। বাড়ানো হয়েছে রফতানি কোটা। এতে দেশটির বাজারে খাদ্যপণ্যটির চাহিদা বেড়ে দামও বাড়তে শুরু করেছে।