ঢাকা, মঙ্গলবার ১৯ নভেম্বর ২০১৯ | ৪ অগ্রাহায়ণ ১৪২৬

Live

বাংলাদেশে প্রবেশের অপেক্ষায় পেট্রাপোলে শতাধিক পিয়াজ বোঝাই ট্রাক

১৭:৩৮, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ সোমবার

বেনাপোল বন্দর দিয়ে রবিবার থেকে বাংলাদেশে পিয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দিয়েছে ভারত সরকার। ফলে সোমবার সকাল থেকে বাংলাদেশের প্রধান এই স্থলবন্দর দিয়ে কোন ধরণের পিয়াজ আমদানি হয়নি। যদিও ওপারে ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে বাংলাদেশে প্রবেশের অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে আছে শতাধিক পিয়াজ বোঝাই ট্রাক। 

ভারত থেকে পিয়াজ আমদানি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বেনাপোলসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে পিয়াজ’র মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে। গতকাল রবিবার বেনাপোল বাজারে ভারতীয় পিয়াজ প্রতি কেজি ৬০ টাকা মূল্যে বিক্রি হলেও আজ সোমবার সকাল থেকে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১১০ টাকায়। 

আমদানিকারক হামিদ এন্টারপ্রাইজের মালিক আ. হামিদ জানান, ভারত হঠাৎ করে পিয়াজের মূল্য বৃদ্ধি করায় পিয়াজ আমদানি প্রায় বন্ধ হয়ে যায়। রপ্তানিকারকের কাছে আমাদের অনেক এলসি  পড়ে আছে। এখন রপ্তানি বন্ধ করে দেওয়ায় বাধ্য হয়ে এলসি বাতিল করতে হচ্ছে।

ভাতের পেট্রাপোল সিএন্ডএফ এজেন্ট স্টাফ ওয়েল ফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক শ্রী কার্তিক চক্রবর্তী জানান, বাংলাদেশে প্রবেশের অপেক্ষায় পেট্রাপোল বন্দরে প্রায় শতাধিক পিয়াজ বোঝাই ট্রাক আটকা পড়েছে। ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের হঠাৎ এ ধরণের সিদ্ধান্তে দু`দেশের ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তিনি আরো বলেন, ভারতের কেন্দ্রীয় বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রণালয়ের নীতিনির্ধারণ বিষয়ক মুখপ্রাত্র সীতাশু কর রপ্তানি নীতির সংশোধন করে তাৎক্ষণিক পদক্ষেপ হিসেবে পিয়াজ রপ্তানি নিষিদ্ধ করেছেন। পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত সব ধরণের পিয়াজ রপ্তানিতে এ নিষেধাজ্ঞা বলবৎ থাকবে।

বেনাপোল কাস্টমস হাউজের সহকারী কমিশনার উত্তম চাকমা জানান, রবিবার থেকে হঠাৎ পিয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেয়ায় সকাল থেকে কোন পিয়াজের ট্রাক বাংলাদেশে প্রবেশ করেনি। গতকাল পর্যন্ত ভারত থেকে প্রতি টন পিয়াজ ৮৫৫ মার্কিন ডলারে রপ্তানি হয়ে আসছিল বাংলাদেশে। গত মাসে ভারত সরকার ৪১০ মার্কিন ডলার থেকে পিয়াজের মূল্য বাড়িয়ে ৮৫৫ মার্কিন ডলার করে। আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে হঠাৎ করে কোন সিদ্ধান্ত নেওয়া সমীচীন নয়। ভারত সরকারের হঠাৎ এ ধরণের সিদ্ধান্তে ফলে দু`দেশের ব্যবসায়ীরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

কৃষি কাগজ/এস এম