ঢাকা, রোববার ২০ অক্টোবর ২০১৯ | ৪ কার্তিক ১৪২৬

Live

প্রাণিসম্পদের জেনেটিক পরিচয় চিহ্নিতকরণএবং ডাটাবেজ সংরক্ষণের আহবান

২১:৫৯, ১৯ জুন ২০১৯ বুধবার

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী বলেছেন, প্রাণিসম্পদ খাতের সঠিক উন্নয়নের স্বার্থে দেশের গবাদিপশুর জেনেটিক পরিচয় চিহ্নিতকরণ এবং ডাটাবেজ সংরক্ষণ খুবই জরুরী। বিদেশীরা প্রাণি স্বাস্থ্য এবং গবাদিপশুর মাংস ও দুধ বৃদ্ধির প্রয়োজনে নির্ভুল জেনেটিক তথ্য সংরক্ষণ করে এ খাতে ব্যাপক উন্নয়ন সাধন করেছে। দেশ ও জাতির কল্যাণে প্রয়োজনে আমাদেরও সে পথে যেতে হবে। গবাদিপশুর জেনেটিক পরিচয় চিহ্নিতকরণ এবং ডাটাবেজ সংরক্ষণে “Animal Identification and Recording: A Way for Development of Livestock in Bangladesh” শীর্ষক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

বুধবার (১৯ জুন) রাজধানীর ফার্মগেটস্থ বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল (BARC) মিলনাতয়নে কর্মশালার আয়োজন করা হয়। প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের মহাপরিচালক (ডিজি) ডা: হীরেশ রঞ্জন ভৌমিকের সভাপতিত্বে কর্মশালায় মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের সহকারী পরিচালক ড. বজলুর রহমান। পঠিত প্রবন্ধের ওপর আলোচনা করেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) ভেটেরিনারি অনুষদের অধ্যাপক একে এম ফজলুল হক ভূঁইয়া ও মহাখালীস্থ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটের পরিচালক ডা: আইনুল হক।

কর্মশালায় প্রতিমন্ত্রী দেশের মানুষের স্বার্থে নিরাপদ আমিষ উৎপাদন বৃদ্ধি্র প্রয়োজনের অপর জোর দিয়ে বিদেশের বাজারের হালাল মাংসের ব্যাপক চাহিদার কথা উল্লেখ করেন। অন্যান্য বক্তারা বলেন, দেশের ক্রমবর্ধমান প্রাণিসম্পদের সহায়ক প্রযুক্তি আবিষ্কারের পাশাপাশি দেশের সরকারি-বেসরকারি খাতের খামারীদের নিয়ে সমন্বিত কার্যক্রম জোরদার করতে হবে। এ কাজের সফলতার জন্য দক্ষ জনবল সৃষ্টির বিকল্প নেই।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রণালয়ের সচিব রইছ উল আলম মণ্ডল, অতিরিক্ত সচিব কাজী ওয়াসি উদ্দিন ও কৃত্রিম প্রজনন কার্যক্রম সম্প্রসারণ ও ভ্রূণ স্থানান্তর প্রযুক্তি বাস্তবায়ন প্রকল্পের পিডি ড. বেলাল হোসেন প্রমুখ।