ঢাকা, সোমবার ২১ অক্টোবর ২০১৯ | ৫ কার্তিক ১৪২৬

Live

পারিবারিক পর্যায়ে লাভজনক খরগোশ পালন

মো. আব্দুর রহমান

২২:৫৭, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ সোমবার

জনবহুল বাংলাদেশে খাদ্য ঘাটতি একটি প্রধান সমস্যা। বিগত বছরগুলোতে দেখা যায় উৎপাদিত প্রাণিজ আমিষ ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার চাহিদা মিটাতে সক্ষম হচ্ছে না। কিন্তু মানুষের পুষ্টি চাহিদা পূরণে প্রাণিজ আমিষ যথাঃ দুধ, ডিম, মাংস ইত্যাদির গুরুত্ব ব্যাপক বা অপরিসীম। প্রতিদিন মাথাপিছু প্রাণিজ আমিষের প্রয়োজন ২৫ গ্রাম এবং প্রাপ্যতা ৫.৭ গ্রাম/জন। ফলে মানুষের স্বাভাবিক বৃদ্ধি ও মানসিক পরিপূর্ণতা বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। দেশে শতকরা ৬৫ ভাগ লোক অতি দরিদ্র এবং অধিকাংশ লোক পুষ্টিহীনতায় ভূগছে। পারিবারিক পর্যায়ে খরগোশ পালন করে প্রাণিজ আমিষের চাহিদা পূরণ, আয় বৃদ্ধি এবং আত্মকর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করা যেতে পারে। অন্য প্রাণির তুলনায় খরগোশ সহজেই পালন করা যায়। ইহার খাদ্য এবং ব্যবস্থাপনা সহজ বিধায় বাড়ীর মহিলা ও ছেলে মেয়েরা কাজের ফাঁকে ফাঁকে সহজেই খরগোশ পালন করতে পারেন।

https://www.krishikagoj.com/media/PhotoGallery/2018March/Khorgos-Breed-1-1909161651.jpg

পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ যথাঃ আমেরিকা, নিউজিল্যান্ড, বৃটেন, নেদারল্যান্ড, চীন জাপানসহ অনেক দেশে বাণিজ্যিকভাবে খরগোশ প্রতিপালন হয়। বাংলাদেশে ইহার পালন এবং মাংস এখনও জনপ্রিয়তা অর্জন করেনি। তবে, বি,আর,ডি,বি এবং বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়সহ অন্যান্য কিছু বেসরকারি সংস্থা খরগোশ পালনে খামারিদের উৎসাহিত করতে সক্ষম হয়েছে। বাণিজ্যিকভিত্তিতে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে খরগোশ পালন অত্যন্ত লাভজনক। 

খরগোশ প্রজাতি: বাংলাদেশে বিভিন্ন প্রজাতির যে খরগোশ দেখা যায়, তন্মধ্যে সাদা, কালো, ডোরা এবং খয়েরী রংয়ের খরগোশ বেশী। বাংলাদেশে প্রাপ্ত জাতসমূহের মধ্যে ডার্ক গ্রে (নেটিভ), ফক্স, ডাচ, নিউজিল্যান্ড লাল, নিউজিল্যান্ড সাদা, নিউজিল্যান্ড কালো, বিলজিয়াম সাদা এবং ছিনছিলা প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য।

https://www.krishikagoj.com/media/PhotoGallery/2018March/ffff-1909161653.jpg
খরগোশ পাবেন কোথায়: কাঁটাবনের দি বার্ডস বিতানের বিক্রয়কর্মী বরুণ দাস জানান, ঢাকার কাঁটাবন, মিরপুর, কাপ্তান বাজারসহ বিভিন্ন পশু-পাখি ও অ্যাকুয়ারিয়ামের দোকানে পাওয়া যায় খরগোশ। গাজীপুরের টঙ্গী মার্কেট, ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা খরগোশ পালনের জন্য বিখ্যাত। এ ছাড়া চট্টগ্রাম, সিলেট, সাভার, নারায়ণগঞ্জ, বগুড়া, পাবনা, নেত্রকোনাসহ দেশের বিভিন্ন বিভাগীয় ও জেলা শহরে খরগোশ কিনতে পাওয়া যায়।

https://www.krishikagoj.com/media/PhotoGallery/2018March/ddd-1909161653.jpg
খরগোশ পালনের সুবিধাসমূহ:
১. ইহা দ্রুত বর্ধনশীল প্রাণি।
২. বাচ্চা দেওয়ার হার অত্যধিক, একসাথে ২-৮ টি বাচ্চা প্রসব করে।
৩. প্রজনন ক্ষমতা অধিক এবং একমাস পর পর বাচ্চা পপ্রদান করে।
৪. খাদ্য দক্ষতা অপেক্ষাকৃত ভাল।
৫. মাংস উৎপাদনে পোল্ট্রির পরেই খরগোশের অবস্থান।
৬. অল্প জায়গায় স্বল্প খাদ্যে পারিবারিক পর্যায়ে পালন করা যায়।
৭. অল্প খরছে অধিক উৎপাদন সম্ভব।
৮. খরগোশের মাংস অধিক পুষ্টিমান সম্পন্ন ও উন্নতমানের।
৯. সব ধর্মের লোকই ইহার মাংস খেতে পারে তাতে কোন সামাজিক বাধা নেই।
১০. রান্না ঘরের উচ্ছিষ্টাংশ, বাড়ীর পাশের ঘাস এবং লতা পাতা খেয়ে ইহার উৎপাদন সম্ভব।
১১. পারিবারিক শ্রমের সফল ব্যবহার করা সম্ভব।
১২. বিলাসবহুল হোটেল, রেস্তোরা এবং বড় বড় ভোজসভায় এদের মাংসের যথেষ্ট সমাদর আছে।

https://www.krishikagoj.com/media/PhotoGallery/2018March/bbb-1909161652.jpg

পালন পদ্ধতি:
বাড়ীর ছাদে বা বাড়ীর আঙ্গিনা অথবা বারান্দায় অল্প জায়গায় বিনিয়োগ করে ছোট আকারের শেড তৈরি করে খরগোশ প্রতিপালন করা যায়। দুই পদ্ধতিতে খরগোশ পালন করা যায় হয়ে থাকে।
১) লিটার পদ্ধতি: কম সংখ্যক খরগোশ পালনের জন্য এ পদ্ধতি উপযোগী। খোরগোশ পালনের জন্য মেঝে কংক্রিটের হওয়া উচিত কেননা খোরগোশ মাটি খুঁড়ে গর্ত বানায় যা অত্যন্ত বিরক্তি কর। লিটার পদ্ধতিতে মেঝের উপর ৪-৫ ইঞ্চি পুরু করে তুষ, কাঠের ছিলকা অথবা ধানের খড় ইত্যাদি ছড়িয়ে দিতে হবে। এই পদ্ধতিতে খরগোশ পালন করতে হলে এক সাথে ৩০টার বেশি খরগোশ প্রতিপালন করা ঠিক নয়। সেক্ষেত্রে পুরুষ খরগোশ অবশ্য আলাদা ঘরে রাখতে হবে তা না হলে খরগোশ সহজে রোগাক্রান্ত হতে পারে। তাছাড়া খরগোশকে সামলানোও খুব অসুবিধা হয়।
খরগোশ প্রতিপালনের জন্য আমাদের দেশে সাধারণত পরিবহনযোগ্য নেটের খাঁচা বা কাঠের বাক্স ব্যবহার করা হয় যা খামারীরা দিনের বেলায় ঘরের বাইরে এবং রাতে ঘরের ভিতরে আনতে পারে। এক্ষেত্রে কোনো কোনো এলাকাতে পুরুষ এবং স্ত্রী খরগোশকে এক সাথে রাখা হয় কিন্তু বাচ্চা দেবার পর পুনরায় বাচ্চাসহ স্ত্রী খরগোশকে আলাদা করে ফেলা হয়। শুধু প্রজননের জন্যে পুরুষ খরগোশকে ও স্ত্রী খরগোশের নিকট ১০-১৫ মিনিট ছেড়ে দেওয়া হয়।


২) খাঁচা পদ্ধতি: বাণিজ্যিকভাবে খরগোশ প্রতিপালনের জন্য খাঁচা পদ্ধতি বিশেষ জনপ্রিয়। সেক্ষেত্রে খাঁচার জন্য লোহার পাত দিয়ে তৈরি ৩-৪ তাকবিশিষ্ট খাঁচা অধিক উপযোগী। লক্ষণীয় যে খরগোশের জন্য প্রয়োজনীয় জায়গা রেখে প্রতিটি তাকে খোপ তৈরি করতে হবে।
খাঁচাতে খরগোশের জন্য প্রয়োজনীয় জায়গা:
ক) একটি পূর্ণবয়স্ক পুরুষ খরগোশের জন্য ৪ বর্গফুট
খ) পূর্ণবয়স্ক মা খরগোশের জন্য ৬ বর্গফুট (প্রসূতি ঘর সহ) এবং
গ) বাচ্চা খরগোশের জন্য ১.৫ বর্গফুট।


পূর্ণবয়স্ক খরগোশের খাঁচা তৈরী করার জন্য খাঁচার দৈর্ঘ্য ১.৫ ফুট, প্রস্থ ১.৫ ফুট এবং উচ্চতা ১.৫ হওয়া উচিত। এরুপ খাঁচায় বাড়ন্ত দুইটি খরগোশ প্রতিপালন করা যাবে। বড় আকারের খরগোশের জন্য খাঁচার দৈর্ঘ্য ৩ ফুট, প্রস্থ ১.৫ ফুট এবং উচ্চতা ১.৫ ফুট বিশিষ্ট খাঁচা উপযোগী। উল্লেখ্য যে ২০ ফুট লম্বা, ১৩ ফুট প্রস্থ এবং ১০ ফুট উচ্চতা বিশিষ্ট বাঁশের অথবা পাকা ঘরে প্রায় ১৫০-২০০টি খরগোশ খাঁচায় লালন পালন করা যায়।


খরগোশের খাবার: খরগোশ তৃণভোজী শান্ত ও নিরীহ স্বভাবের প্রাণি। কচি ঘাস, লতা-পাতা, গাজর, মুলা, শস্য দানা, মিষ্টি আলু, শশা, খড়কুটো, তরকারির ফেলনা অংশ, গম, ভুসি, কুড়া, খৈল, সয়াবিন, দুধ, পাউরুটি, ছোলা ইত্যাদি খরগোশের নিত্য দিনের খাবার। খরগোশকে ঘাস, শাক ইত্যাদি সব সময় শুকনা বা ঝকঝকে অবস্থায় দিতে হবে। ভেজানো গম বা ছোলা অল্প সিদ্ধ করে এর সাথে ভুসি মিশিয়ে দিলে আরো ভালো হয়।

https://www.krishikagoj.com/media/PhotoGallery/2018March/ggggg-1909161655.jpg


উল্লেখ্য যে, খরগোশের বয়স ও প্রজাতি ভেদে খাদ্য গ্রহণ ও পুষ্টির প্রয়োজনীয়তা ভিন্ন হয়। একটি বয়স্ক খরগোশের খাদ্যে নিম্নোক্ত পুষ্টির উপাদান থাকতে হয়। যেমন: ক্রড প্রোটিন ১৭-১৮%, আঁশ ১৪%, খনিজ পদার্থ ৭% ও বিপাকীয় শক্তি ২৭০০ কিলোক্যালরি/ কেজি হওয়া প্রয়োজন এবং বয়স্ক খরগোশের জন্য দৈনন্দিন ১৩০-১৪৫ গ্রাম, দুগ্ধবতী খরগোশের জন্য ২৫০-৩০০ গ্রাম ও বাড়ন্ত খরগোশের জন্য প্রতিদিন ৯০ গ্রাম খাদ্য সরবরাহ করতে হবে।

নিচে সুবিধার জন্য একটি পূর্ণবয়স্ক খরগোশের খাদ্য তালিকা ছক আকারে দেওয়া হল:

প্রজনন: খরগোশ সাধারণত: ৫-৬ মাস বয়সে প্রথম প্রজনন-ক্ষম হয়। গর্ভবতী খরগোশ ২৮-৩৪ দিনের (জাতভেদে) মধ্যে বাচ্চা দেয় এবং বাচ্চার ওজন খরগোশের শারীরিক ওজনের উপর নির্ভরশীল এবং ইহা সাধারনতঃ দৈহিক ওজনের ২% হয়। খরগোসের দুগ্ধ-দান কাল সময় ৬-৮ সপ্তাহ এবং এই সময় ওজন হলো ৮০০-১২০০ গ্রাম। খরগোশ প্রতিবারে ২-৮ টি বাচ্চা প্রদান করে এবং একবার বাচ্চা দেয়ার ১ মাস পরেই আবার বাচ্চা দিতে পারে। প্রজননের সময় একটি পুরুষ খরগোশের সাথে ৩-৪টি স্ত্রী খরগোশ রাখা যেতে পারে তবে গর্ভবতী খরগোশকে পৃথক করে রাখা ভাল।


বাচ্চার যতœ: যদি ছোট প্রাণি খরগোশ একসঙ্গে ৬-৮টি বাচ্চা দেয় তাই এই সময় প্রথম দশ দিন এই বাচ্চাগুলোর বিশেষ যতেœর প্রয়োজন হয়। যেমন- মা খরগোশ হতে দুধ খেতে সাহায্য করা, প্রয়োজনে ফিডারে করে দুধ খাওয়ানো, ভাতের মাড় বা দুধে বিস্কুট ভিজিয়ে খাওয়ানো যেতে পারে। প্রথম দশ দিন নরম কাপড় দিয়ে বাচ্চাগুলোকে অবশ্যই ধরতে হবে।
বাজারজাত: ময়মনসিংহের মুক্তাগাছার খরগোশ খামারি তরিকুল ইসলাম জানান, খরগোশের বাচ্চা বা পূর্ণবয়স্ক খরগোশের বাজারজাতকরণ বেশ সহজ। দেশের অনেক জেলা বা বিভাগীয় শহরে ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করা যায়। ব্যবসায়ীরা খামারে গিয়েও খরগোশ কিনে থাকেন। বাচ্চার বয়স এক থেকে দেড় মাস হলেই বিক্রির উপযোগী হয়। তবে চার থেকে ছয় মাস বয়সী বাচ্চার দাম বেশি পাওয়া যায়।


খরগোশের রোগবালাই: সব প্রাণিরই কিছুনা কিছু রোগ-বালাই আছে তবে খরগোশের ক্ষেত্রে তুলনামূলক-ভাবে রোগ-বালাই কম। খরগোশ পরিচ্ছন্ন জায়গায় থাকতে বেশী পছন্দ করে। তাই ইহার ঘর সর্বদাই পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। ঘরে ২৯ সেঃ এর বেশী তাপমাত্রা হলে পুরুষ খরগোশ অনুর্বর হয়ে যায়। তাছাড়া কক্সিডিওসিস, গলাফুলা, পাস্তুরিলোসিস প্রভৃতি কয়েকটি রোগ খরগোশে সাধারনতঃ দেখা যায়। অসুস্থ খরগোশের চোখ ফ্যাকাসে, কান খাড়া থাকেনা, লোম শুষ্ক ও রুক্ষ দেখায়, খাদ্য ও পানি খেতে অনীহা প্রকাশ করে দৌড়াদৌড়ি কম করে ও শরীরের তাপমাত্রা বৃদ্ধি পায় প্রভৃতি লক্ষণ দেখা যায়। ঘর সর্বদাই পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখার মাধ্যমে সকল রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব।


খরগোশ পালনে ঝুঁকিপূর্ণ দিকসমূহ:
১. উৎপাদিত দ্রব্যের বাজারজাতকরণে সমস্যা।
২. খরগোশের মাংস সবাই খেতে চায় না।
৩. খরগোশ অসুস্থ হলে বাঁচানো সম্ভব হয় না।
৪. খরগোশের ইউরিনে ভীষণ গন্ধ থাকে।
৫. বাচ্চার যতœ বিশেষ করে প্রথম ১০ দিন সতর্কতা অবলম্বন করা প্রয়োজন।

উপসংহার:
বাংলাদেশে খরগোশকে সাধারণত: শখের বা পোষা প্রাণি হিসেবে পালন করা হয়। বর্তমানে বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকায় বাণিজ্যিকভাবে খরগোশ পালন করা হচ্ছে। খরগোশের মাংস অত্যন্ত সুস্বাদু এবং পুষ্টিকর। বিলাসবহুল হোটেল, রেস্তোরা এবং বড় বড় ভোজসভায় এদের মাংসের যথেষ্ট সমাদর আছে। খরগোশের মাংসে প্রোটিন, শক্তি, মিনারেল ইত্যাদির পরিমান বেশি এবং ফ্যাট, সোডিয়াম এবং কোলেষ্টেরল এর পরিমাণ কম। তাছাড়া গৃহপালিত প্রাণি হিসেবে খরগোশ পালনের মাধ্যমে অর্থনৈতিক আয়ের প্রচুর সম্ভবনা রয়েছে। খরগোশের মাংস একদিকে যেমন প্রাণিজ আমিষের একটি চমৎকার উৎস হতে পারে, অন্যদিকে অভাবগ্রস্থ মহিলা ও বেকার যুবকদের কর্মসংস্থানের একটি বিরাট উৎস হিসেবে ব্যবহৃত হতে পারে।

মো. আব্দুর রহমান
শিক্ষার্থী ও সাংবাদিক, আশরাফুল হক হল ১২৬/গ
বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ময়মনসিংহ-২২০২।
মোবাইল: ০১৭৫৫-২৪৬৬৮৯

কৃষি কাগজ/এস এম